রোহিঙ্গা ক্যাম্পে রবির থ্রিজি ফোরজি নেটওয়ার্ক সচল

0
21

ঢাকা , ১১ সেপ্টেম্বর(ডেইলি টাইমস২৪):কক্সবাজারের টেকনাফ-উখিয়া এলাকার অবস্থিত রোহিঙ্গা ক্যাম্পে থ্রিজি ফোরজি সেবা বন্ধ করে দিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। কিন্তু এক দিনের ব্যবধানে রবি কোম্পানি পুনরায় থ্রিজি ফোরজি সেবা সচল করে দেয় ক্যাম্পে।

জানা গেছে, গত সোমবার রাত ১০টায় বিটিআরসি সব মোবাইল ফোন অপারেটরদের কাছে এ নির্দেশনা পাঠায়। নির্দেশনা অনুসারে মঙ্গলবার রোহিঙ্গা ক্যাম্প ও তৎসংলগ্ন এলাকায় থ্রিজি ও ফোরজি মোবাইল ডেটা বন্ধ করে দেন সংশ্লিষ্টরা।

এর আগে গত ২ সেপ্টেম্বরে অপারেটরদের সঙ্গে এক বৈঠকের পর বিটিআরসি বিকাল ৫টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত টেকনাফ ও উখিয়ায় থ্রিজি ও ফোরজি বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়।

এক সপ্তাহের মধ্যে সেই নির্দেশনা কার্যকর করে বিটিআরসি। কিন্তু মঙ্গলবার রাত-দিন বন্ধ ছিল থ্রিজি, ফোরজি নেটওয়ার্ক।

গত ১ সেপ্টেম্বর এক চিঠির মাধ্যমে বিটিআরসি রোহিঙ্গারা যাতে মোবাইল ফোন সেবা না পেতে পারে সে বিষয়ে অপারেটরদেরকে নির্দেশনা পাঠায়।

রোহিঙ্গা অধ্যুষিত এলাকা পালংখালী ইউপি চেয়ারম্যান এম গফুর উদ্দিন চৌধুরী যুগান্তরকে বলেন, মঙ্গলবার সকাল থেকে আমার এলাকায় কোনো প্রকার থ্রিজি-ফোরজি নেটওয়ার্ক পায়নি। কিন্তু জরুরি কাজে তাজনিমারখোলা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ভেতরে গেলে রবি কোম্পানি থ্রিজি-ফোরজি নেটওয়ার্ক পাওয়া যায়।

স্থানীয় পালংখালী এলাকার নুরুল বশর অভিযোগ করে জানায়, মঙ্গলবার থেকে তারা সব ধরনের নেটওয়ার্ক কোম্পানির থ্রিজি-ফোরজি সেবা থেকে বঞ্চিত। কিন্তু শফিউল্লাহকাটা, জামতলী ক্যাম্পের অভ্যন্তরে অন্যান্য অপারেটরে থ্রিজি-ফোরজি বন্ধ থাকলেও রবি কোম্পানির থ্রিজি-ফোরজি চালু রয়েছে বলে তার অভিযোগ।

বালুখালী ২ নং ক্যাম্পের বাসিন্দা রোহিঙ্গা নাগরিক নুরুল বশর বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে এ প্রতিবেদককে জানান, মঙ্গলবার নেট ব্যবহারে কিছুটা সমস্যা সৃষ্টি হলেও বুধবার ভোর থেকে রবির থ্রিজি-ফোরজি সচল রয়েছে। যার ফলে ফেসবুক, ইমো, হোয়াটসঅ্যাপ ও ইউটিউব ব্যবহারে কোনো সমস্যা নেই বলে জানান তিনি।

 

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. নিকারুজ্জামান চৌধুরী জানান, এ অভিযোগটি আমিও শুনেছি। কিভাবে তারা পুনরায় ক্যাম্পে থ্রিজি-ফোরজি নেটওয়ার্ক চালু করল তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।