মুজিববর্ষে সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষ উৎপাটন করব : সেতুমন্ত্রী

ঢাকা , ১২ ফেব্রুয়ারি, (ডেইলি টাইমস২৪):

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মুজিববর্ষে সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষ উৎপাটন করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়তে চাই। মুজিববর্ষে আমরা কোনো অন্ধকারের অপশক্তি দেখতে চাই না। আজ বুধবার দুপুরে গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন, সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনে অন্ধকারের অপশক্তি পরাজিত হয়েছে। কোনো অপশক্তিকে বাংলাদেশের ক্ষমতার মঞ্চে দেখতে চাই না। মুক্তিযুদ্ধের ধারার বাংলাদেশ নির্মাণ করব এটাই মুজিবর্ষের অঙ্গিকার। মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী কোনো অপশক্তিকে আর বাংলাদেশের ক্ষমতার মঞ্চে আসতে দিতে পারি না। সেই শপথ মুক্তিযোদ্ধাদের নিতে হবে। আমরা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ চালাব। কোনো অপশক্তি আর এই মসনদে বসতে পারবে না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নিয়ে এখন আর বিচলিত হবেন না। এটা এখন নালিশ পার্টি। তারা নির্বাচনে ফেল, আন্দোলনে ফেল, এখন পুঁজি হচ্ছে নালিশ। তাও আবার বিদেশিদের কাছে নালিশ করে। বিদেশিদের কাছে নালিশ করলে বাংলাদেশকে ছোট করা হয়।

এ সময় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ নবীন-প্রবীনদের সংগঠন। প্রবীনদের অভিজ্ঞতা ও নবীনদের প্রাণ শক্তিকে কাজে লাগিয়ে আওয়ামী লীগ পরিচালিত হবে। আওয়ামী লীগে সুবিধাবাধিদের কোনো স্থান নেই। বসন্তের কোাকিলদের আওয়ামী লীগের নেতা বানাবেন না। অনুপ্রবেশকারী, সুবিধাবাদী ও পরগাছামুক্ত আওয়ামী লীগ করতে চাই। দুঃসময়ের ত্যাগী নেতাদের দলের নেতা করতে হবে। ঘরের মধ্যে ঘর করবেন না। আওয়ামী লীগের পকেট কমিটি করবেন না। ত্যাগী নেতারা কোনঠাসা হলে আওয়ামী লীগ কোনঠাসা হবে। তাই ত্যাগী নেতাদের মূল্যায়ন করতে হবে। প্রধানমন্ত্রীর নির্বাচনী এলাকার কোটালীপাড়ায় ওয়ার্ড ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কাউন্সিল শেষে উপজেলা আওয়ামী লীগের কাউন্সিল করা হয়েছে, এটাকে আমি সাধুবাদ জানাই। এটি দলের জন্য একটি ভাল দিক।

মন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু দিয়েছেন দেশ, আর শেখ হাসিনা দিয়েছেন উন্নয়ন। মহান আল্লাহপাক আমাদের জন্য এই দুজনকে সৃষ্টি করেছেন। একজন স্বাধীনতার জন্য আরেকজনকে মুক্তির জন্য। আজকে শিক্ষা-দীক্ষা, উন্নয়ন, ডিজিপি, আর্থসামাজিকসহ সব দিক থেকে পাকিস্তানকে পিছনে ফেলে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। শেখ হাসিনার জন্য বাংলাদেশ বিশ্বসভায় মাথা উঁচু করে দাঁড়িয়েছে। তিনি ভূখণ্ড, সমুদ্র, মহাকাশ ও সীমান্ত বিজয় করেছেন। আইএমএফ আগে বাংলাদেশকে ভিক্ষুকের দেশ বলতো। এখন তারা বাংলাদেশকে এশিয়ার মধ্যে সবচেয়ে বেশী প্রবৃদ্ধির দেশ বলে। আমাদের বর্তমান রিজার্ভ ৮৮২ কোটি টাকা। সুবর্ণজয়ন্তীতে এই রিজার্ভ ৩০০ কোটি ডলার হবে। আমাদের বর্তমান রিজার্ভ পাকিস্তানের চেয়ে ৪ গুন বেশি। দারিদ্রতা ২০ ভাগে
নেমেছে। হতদরিদ্র ৫ থেকে ১০ ভাগ। বাংলাদেশের অভূতপূর্ব উন্নয়ন দেখে বিশ্ব অবাক।

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের সবচেয়ে সৎ, সাহসী, দক্ষ প্রশাসক, সফল কুটনীতিক, জনপ্রিয় নেতা শেখ হাসিনা। আমাদের প্রধানমন্ত্রী বিশ্বের দুজন সৎ নেতার মধ্যে একজন। ১০ জন প্রভাবশালী নেতার মধ্যে একজন। চারজন পরিশ্রমী নেতার মধ্যে একজন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা টুঙ্গিপাড়া ও কোটালীপাড়ার এমপি। এ জন্য আপনারা ও আমরা গর্বিত।

কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট সুভাষ চন্দ্র জয়ধরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সম্মেলনের প্রথম পর্বের আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য কাজী আকরাম উদ্দিন আহম্মেদ, শেখ হেলাল উদ্দিন এমপি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ. ফ. ম. বাহাউদ্দিন নাসিম, ধর্ম প্রতিমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ, শেখ সালাউদ্দিন জুয়েল এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধুরী এমদাদুল হক, সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খান, কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম হুমাযুন কবির, উপজেলা চেয়ারম্যান বিমল কৃষ্ণ বিশ্বাস, পৌর মেয়র হাজী মোঃ কামাল হোসেন শেখসহ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ।

সম্মেলনের দ্বিতীয় পর্বে কোটালীপাড়া উপজেলার আওয়ামী লীগের জন্য সভাপতি হিসেবে ভবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে মোঃ আয়নাল হোসেন শেখের নাম ঘোষণা করেন সেতুমন্ত্রী।